১৮ লাখ টাকা ফেরত দিয়ে ৫০ হাজার টাকা পেলেন রিকশাচালক ইউনুস

রাজধানীর ভাটারা থা’নাধীন কোকাকোলার ঢালীবাড়ী এলাকায় রাস্তায় প’ড়েছিল একটি ব্যাগ। সেদিক দিয়েই যাচ্ছিলেন রিকশাচালক মো. ইউনুস। ব্যাগটি দে’খতে পেয়ে তুলে দেখেন প্রচুর টাকা।

তখন ব্যাগটি নিয়ে চলে যান ইউনুস। তবে ব্যাগভর্তি এত টাকা থাকা স’ত্ত্বেও একটি টাকা খরচ করেননি ইউনুস। নিজে’র হেফাজতে রেখে টাকার মালিককে বিভিন্ন জায়গায় খুঁ’জতে থাকেন।

পরে টাকার খুঁজে অ’ভিযা’নে নামা পু’লিশের মাধ্যমে টাকাগুলো মালিকের হাতে তুলে দেন তিনি।

ঘ’টনাটি গত ৮ মা’র্চ রাত সাড়ে ১০টার দিকে ঘ’টে। রাজধানীর ভাটারা থা’নাধীন কোকাকোলা মোড় থেকে এক গাড়ি ব্যবসায়ী স’ঙ্গে ১৮ লাখ টাকা ও একজন সহকারীকে নিয়ে রিকশায় চড়ে বাসায় ফিরছিলেন।

কোকাকোলা এলাকার ঢালীবাড়ী পৌঁছে টাকার ব্যাগটি ভুলে রিকশা রেখে নেমে যান। ওই গাড়ি ব্যবসায়ী বাসার গেটে যাওয়ার পর মনে প’ড়ে তিনি টাকার ব্যাগ রিকশায় ফে’লে এসেছেন। দ্রুত দৌঁড়ে গিয়ে যেখানে তিনি নেমেছিলেন, ওই স্থানের আশেপাশে কোথাও রিকশাচালককে খুঁজে পাননি।

ব্যাগটিতে গাড়ি বিক্রির ১৮ লাখ টাকা ছিল। উপায় না পেয়ে ভু’ক্তভো’গী ব্যবসায়ী পু’লিশের দারস্থ হন। ভাটারা থা’নায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি)।জিডিতে ব্যবসায়ী বলেন, হারিয়ে যাওয়া ব্যাগটিতে ১৮ লাখ টাকা রয়েছে। এসব টাকা তার নিজে’র শো রুমের গাড়ি বিক্রির। বুধবার সন্ধ্যায় ভাটারা থা’নার ওসি মোক্তারুজ্জামান যুগান্তরকে এসব তথ্য জা’নিয়েছেন।

ওসি বলেন, ওই ব্যবসায়ীর জি’ডি পরই আম’রা পুরো এলাকার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখি। ফুটেজে দেখা যায়, ওই ব্যবসায়ী রিকশা থেকে নামা’র সময় টাকার ব্যাগটি রিকশাতেই রেখে যান। ব্যাগটি যে যাত্রী রেখে গেছেন সেটি ওই রিকশাচালকও জানতেন না। ওই সময় চালক পুনরায় চালাতে শুরু করলে রিকশা থেকে ব্যাগটি প’ড়ে যায়। তখন ফুটেজে দেখা যায়, ওই ব্যাগটির ওপর দিয়ে কয়েকটি রিকশা গেছে, কিন্তু কেউ তুলেনি। পরে আরেকজন রিকশাচালক এসে ব্যাগটি তুলে দেখেন ভেতরে টাকা। এই টাকা ফুটেজেও দেখা যাচ্ছিল। তারপর টাকার ব্যাগটি নিয়ে ওই রিকশাচালক সোজা চলে যান।

ওসি বলেন, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে রিকশার নাম্বার প্লেট দেখে কয়েকটি ভাটারা এলাকায় সবক’টি গ্যারেজে খোঁ’জ করি। সেখানে মো. ইউনুস নামের ওই রিকশা চালককে শনা’ক্ত ক’রতে পারি আম’রা। এরপর তাকে পেতে অ’ভিযা’ন শুরু করা হয় বিভিন্ন জায়গায়। কিন্তু পাওয়া যাচ্ছিল না। পরদিন মঙ্গলবার রাতে আম’রা ১০০ ফিটের দিকে অ’ভিযান চালালে সেখানে ওই রিকশাচালককে পেয়ে যাই।

ওসি বলেন, রিকশাচালক ইউনুসকে পেয়ে তাকে খোঁ’জার বিষয়টি বলতেই তিনি বলেন, আমা’র কাছে টাকা আছে। আমি মালিককে খুঁজছি। কিন্তু পাচ্ছি না। এরপর আম’রা ইউনুসকে নিয়ে তার হেফাজতে থাকা টাকাগুলো উ’দ্ধা’র করি এবং তাকেসহ টাকাগুলো থা’নায় নিয়ে আসি। পরে থা’নায় ওই ব্যবসায়ীর হাতে টাকাগুলো তুলে দিই। এ সময় ওই ব্যবসায়ী খুশি হয়ে রিকশাচালক ইউনুসকে ৫০ হাজার টাকা উপহার হিসেবে দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *