অনৈতিক অবস্থায় দেবর-ভাবী, হাতে নাতে ধরল গ্রামবাসী

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলা জোড়গাছা ইউনিয়নের দেবর-ভাবীকে হাতে নাতে আটক করেছে গ্রামবাসী। আটককৃতরা ভেলুর পাড়া গ্রামের আজিমুদ্দিন এর ছেলে আনিসুর রহমানের স্ত্রী সাবিনার ও প্রতিবেশী দেবর হাসান মাহমুদ চঞ্চল (২৭) ।

এ বিষয়ে ভাবী সাবিনা নিজে বাদী হয়ে সোনাতলা থানায় একটি ধর্ষণ মামলা করে। আজ শুক্রবার (১৯ মার্চ) দুপুরে আসামি চঞ্চলকে কোর্টে প্রেরণ করে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সোনাতলা থানা অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সাবিনার স্বামী আনিসুর রহমান ঢাকায় মেঘনা গ্রুপে চাকরি করেন। চাকরীর জন্য সে দীর্ঘ সময় ঢাকায় থাকার কারণে তার স্ত্রী সবিনা প্রতিবেশী বাবলু প্রামানিকের ছেলে চঞ্চলের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তোলে। চঞ্চল ও সাবিনা প্রতিবেশী দেবর – ভাবি সম্পর্ক।

গত বুধবার ( ১৭ মার্চ) রাত সাড়ে ১০ টায় বাসায় কেউ না থাকার সুযোগে চঞ্চল সাবিনার বাসায় গিয়ে অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়ে। এই ঘটনা এলাকাবাসীর চোখে পড়লে এলাকাবাসী ঘরে ঢুকে চঞ্চলকে অনৈতিক অবস্থায় দেখতে পায়, পরে বাইরে এসে ঘর তালাবন্ধ করে রাখে।

পরে সাবিনা সত্যতা স্বীকার করে বলেন, চঞ্চলের সঙ্গে তাঁর দীর্ঘ তিন বছরের সম্পর্ক, অপরদিকে চঞ্চল এই সম্পর্কের কথা অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত করে আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এলাবাসী বলেন, আমরা এর আগেও সাবিনা ও চঞ্চলের পরকীয়া সম্পর্কের কথা শুনেছি,

হাতেনাতে ধরাও পড়েছে। এ ঘটনায় স্থানীয়রা পরদিন সকালে সোনাতলা থানা পুলিশে খবর দিলে এসআই ইয়ামিন ফোর্স সহ ১৮ মার্চ বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থলে পৌঁছে ছেলে মেয়েকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে ঐদিন রাত্রি সাবিনা নিজে বাদী হয়ে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে যার নং-১০।

এ ব্যাপারে সোনাতলা থানা অফিসার ইনচার্জ রেজাউল করিম রেজা জানান, সাবিনা ধর্ষণ মামলা করায় আসামি চঞ্চলকে কোটে প্রেরণ করে সাবিনাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেডিক্যাল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *