ঢাকায় টিকা নিয়েছেন সাড়ে ৭ লাখের বেশি মানুষ, সারাদেশে কত?

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও চলছে করোনার টিকাদান কর্মসূচি। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত করোনা এই টিকাদান কার্যক্রম চলছে রাজধানীসহ সারাদেশে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২৭ জানুয়ারি এই টিকাদান কর্মসূচি উদ্বোধন করেন। এরপর থেকে ১৮ মার্চ পর্যন্ত সারাদেশে টিকা নিয়েছেন ৪৬ লাখ ৮৭ হাজার ৮২৪ জন। এর মধ্যে শুধু ঢাকা মহানগরীতেই টিকা নিয়েছেন ৭ লাখ ৫১ হাজার ৫২৩ জন।

ঢাকা মহানগরীতে টিকা গ্রহীতাদের মধ্যে পুরুষ চার লাখ ৮৪ হাজার ৮৫৩ জন ও নারী দুই লাখ ৬৬ হাজার ৮৭০ জন। তাদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার উপসর্গ বা অ্যাডভার্স ইভেন্ট ফলোইং ইমিউনাইজেশন (এইএফআই) রিপোর্ট করেছেন ২১৯ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় টিকা নিয়েছেন ১৩ হাজার ৪১০ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ৮ হাজার ৩৯৮ জন ও নারী ৫ হাজার ১২ জন। এ সময়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার উপসর্গ বা অ্যাডভার্স ইভেন্ট ফলোইং ইমিউনাইজেশন (এইএফআই) নিয়ে কেউ রিপোর্ট করেননি।

ঢাকা মহানগরের যে ৪৭টি প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত টিকাদান কার্যক্রম চলছে সেগুলো হলো- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ), সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল (সিএমএইচ, ঢাকা), সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, সাভার; বিএনএস হাজী মহসিন, বিএএফ বাশার, বিএএফ বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয় ক্লিনিক, সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল (ফুলবাড়িয়া), মোহাম্মদপুর ফার্টিলিটি সার্ভিসেস অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার এবং ১০০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু হাসপাতাল, মাতৃ ও শিশুস্বাস্থ্য প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান (আজিমপুর), মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট (মাতুয়াইল), কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল (রাজারবাগ), কামরাঙ্গীরচর ৩১ শয্যা হাসপাতাল।

২৫০ শয্যাবিশিষ্ট টিবি হাসপাতাল (শ্যামলী), সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল (মহাখালী), কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতাল, ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান, ঢাকা মহানগর জেনারেল হাসপাতাল, ঢাকা মহানগর শিশু হাসপাতাল, ডেন্টাল কলেজ (মিরপুর, ঢাকা), শিশু হাসপাতাল (শ্যামলী), ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট, জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস অ্যান্ড ইউরোলজি, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট, জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট, জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান (নিটোর), শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতাল, জাতীয় নাক-কান-গলা ইনস্টিটিউট।

শেখ হাসিনা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি, জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল, জাতীয় বাতজ্বরজনিত হৃদরোগ প্রতিরোধ কেন্দ্র, নগর মাতৃসদন (কসাইটুলি, বংশাল), নগর মাতৃসদন (হাজারীবাগ পার্ক, হাজারীবাগ), সীমান্তিক মাতৃসদন (গোলাপবাগ, ধলপুর), সীমান্তিক নগর মাতৃসদন (তিলপাড়া, খিলগাঁও), বর্ডার গার্ড হাসপাতাল (ঢাকা), সেন্ট্রাল ক্লিনিক, র‌্যাব ফোর্সেস (সদর দফতর, উত্তরা), ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এবং পিএ-৪, পিএসটিসি, নগর মাতৃসদন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *