এক প্রেমিকের সঙ্গে দুই বোনের শারীরিক সম্পর্ক তদন্তে খুলল জট

রংপুরে খালাতো দুই বোনের আত্মহত্যার তিন বছর পর প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করেছে পিবিআই (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন)। দুই বোনের প্রেমিক ছিলেন একজন। পরবর্তীতে প্রেমিকের প্রতরণার বিষয়টি বুঝতে পেরে দুই বোন আত্মহত্যা করে।

পিবিআই এর তদন্তে জানা যায়, খালাতো দুই বোন সাদিয়া জান্নাতি ও লৎফুন্নাহার খাতুনের সঙ্গে প্রতিবেশী মেরাজুল নামের এক যুবকের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

বিয়ের প্রলোভন দিয়ে দুজনের সঙ্গেই শারীরিক সম্পর্ক করেন মেরাজুল। পরে প্রতারণার বিষয়টি বুজতে পেরে একই সঙ্গে বিষপান করে আত্মহত্যা করে জান্নাতি ও লুৎফুন্নাহার। এ ঘটনায় মেরাজুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে পিবিআই।

পিবিআই রংপুরের পুলিশ সুপার জাকির হোসেন জানান ওই ঘটনায় মেরাজুল ইসলাম নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) তিনি আদালতের কাছে দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে ত্রিভূজ প্রেমের করুণ পরিণতির এ ঘটনা উঠে আসে।

জানা যায়, রংপুর নগরীর শেখপাড়া এলাকার আনছার আলীর ছেলে মেরাজুল ইসলামের (২১) সঙ্গে একই গ্রামের আলমগীর হোসেনের মেয়ে দশম শ্রেণির ছাত্রী সাদিয়া জান্নাতি ও তার খালাতো বোন পূর্ব শেখপাড়া এলাকার মঞ্জুর হোসেনের মেয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী লুৎফুন্নাহার খাতুনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

এক পর্যায়ে দুজনের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন মেরাজুল। তবে দুই বোনের কেউই জানতো না যে মিরাজুল তাদের দুজনের সঙ্গেই প্রেম করছে। বিষয়টি জানাজানি হলে ২০১৮ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি নগরীর শেখপাড়ায় নানা বাড়িতে গিয়ে একই সঙ্গে বিষপান করে আত্মহত্যা করে তারা।

চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় কোতয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। প্রায় আড়াই বছর তদন্ত করার পরও ঘটনার রহস্য উদঘাটন হয়নি। পরে পিবিআইকে মামলাটির তদন্তভার প্রদান করা হয়।

পিবিআইর পুলিশ সুপার জাকির হোসেন বলেন, দায়িত্ব পাওয়ার পর আমরা দীর্ঘ সময় অনুসন্ধান করি। তবে মামলার রহস্যের জট খুলে দেয় দুই খালাতো বোনের মরদেহের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন। কারণ তারা দুজনই মৃত্যুর আগে ধর্ষিত হওয়ার বিষয়টি জানা যায় ওই প্রতিবেদনে। তারপর তথ্য-প্রযুক্তির ব্যবহার ও অনুসন্ধানেই পুরো বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে আসে। সূত্র: news24new

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *