ডেলিভারিতে বাচ্চার পা ধরে টানাটানি, মাথা ছিঁড়ে রইল গর্ভে

যশোর জেনারেল হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে এক অন্তঃসত্ত্বা নারীর পেট থেকে মৃত বাচ্চা বের করতে গিয়ে মাথা থেকে যাওয়া নিয়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

রোগীর স্বজনদের অভিযোগ হাসপাতালের আয়া বাচ্চা বের করার চেষ্টা করায় এমনটি ঘটেছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, বাচ্চা পচে যাওয়ায় এমনটি হয়েছে। তবে অভিযুক্ত আয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রোগীর স্বজনরা জানান, শনিবার সকালে হাসপাতালে আন্না নামে এক অন্তঃসত্ত্বা নারীকে হাসপাতালে আনা হয়। চিকিৎসকের পরমার্শে আল্ট্রাসনোগ্রাম করানো হয়। এরপর চিকিৎসক জানান, পেটে বাচ্চা মারা গেছে।

বাচ্চাটি নরমাল ডেলিভারির মাধ্যমে বের করতে ওষুধ দেয়া হয়। এরপর চিকিৎসক চলে যান। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে গর্ভে থাকা বাচ্চার দুই পা বেরিয়ে এলে রোগী আন্নাকে লেভার ওয়ার্ডে নিয়ে যান আয়া মোমেনা।

বাচ্চার পা ধরে টানাটানি করলে দেহ বেরিয়ে আসে। তবে মাথা থেকেই যায়। খবর পেয়ে চিকিৎসকরা আসেন এবং নরমাল পদ্ধতিতে নবজাতককে বের করার পরামর্শ দেন।

এ বিষয়ে হাসপাতালের আরএমও জানান, ৫ মাসের বাচ্চাটি পেটে মারা যায়। মারা যাওয়া বাচ্চাটি বের করতে গিয়ে একাংশ পেটে থেকে গেছে। তবে ওষুধ দিয়ে তা বের করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে আয়া কাজটি করায় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *