বিশ্ববিদ্যালয়ের পর এবার প্রাথমিক,মাধ্যমিক স্কুলেও আরবি শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করলো পাকিস্তান

এবার আরবি ভাষা শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করে বিল পাশ করেছে পাকিস্তানের সংসদ।

রাজধানী ইসলামাবাদের প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে প্রথমবার আকাশে দেখা মিলল সেই পবিত্র ‘আইবিস’ পাখিবাধ্যতামূলক আরবি ভাষা পাঠদান করা হবে। আগামী ছয় মাসের মধ্যে প্রথমবার আকাশে দেখা মিলল সেই

পবিত্র ‘আইবিস’ পাখিসংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় তা বাস্তবায়ন করবে।গত সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) সংসদের এক অধিবেশনে ‘আরবি ভাষা বিল ২০২০’ পেশ করেন পাকিস্তান মুসলিম লিগের সিনেট সদস্য জাভেদ আব্বাসি।

বিলটি সর্বসম্মতিতে পাশ হয়।তবে বিরোধী দল পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতা রেজা রাব্বানি বিরোধিতা করেন। রাব্বানি এটিকে পাকিস্তানের বৈচিত্রপূর্ণ সংস্কৃতির পরিপন্থি বলে অবিহিত করেন।

পাকিস্তানের সংবাদ মাধ্যম ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ইসলামাবাদের স্কুলগুলোতে প্রাথমিক আরবি শিক্ষা দেওয়া হবে। এরপর ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত আরবি ব্যাকরণ পড়ানো হবে।

অধিবেশনে সাংসদ আব্বাসি বলেন, আরবি ভাষা বিশ্বের প্রায় ২৫ টি দেশের অফিসিয়াল ভাষা। তাছাড়া আরবি ভাষা বিশ্বের সর্বাধিক প্রচলিত পাঁচটি ভাষার অন্যতম।

আরবি ভাষা শিখে পাকিস্তানিরা মধ্যপ্রাচ্যে অনেক কাজের সুযোগ পাবে। একজন মুসলিমের ধর্মীয় ভাষা এটি। পবিত্র কোরআন ও দৈনন্দিন নামাজে আরবিতে দোয়া ও আয়াত পাঠ করা হয়। সূত্র : ডন

আরো পড়ুন-যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিমবিদ্বেষী নারী কংগ্রেস সদস্য বহিষ্কার

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিসভায় এক নারী কংগ্রেস সদস্য মার্জুরি টেইলর গ্রেইনকে দুটি কমিটি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সিনেটরদের ভোটে বহিষ্কার হন তিনি। এর আগে মুসলিমবিদ্বেষী বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় আসেন তিনি।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মার্জুরি টেইলর গ্রেইন নামের ওই কংগ্রেস সদস্য নভেম্বরের নির্বাচনের আগে অসংখ্য উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়েছেন।

যা দেশেটির আইন-শৃঙ্খলার জন্য হুমকি তৈরি করে। কোনো বিশ্বাসযোগ্য তথ্য-উপাত্ত ছাড়াই ডেমোক্র্যাটদের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্রতত্ত্বের অভিযোগ তোলেন মার্জারি। এ ছাড়া নানা সময়ে মুসলিমদের নিয়ে বর্ণবাদমূলক মন্তব্যের অভিযোগও ছিল তার বিরুদ্ধে।

বিবিসি জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার যখন মার্জুরিকে বহিষ্কারে ভোট অনুষ্ঠিত হয়, তার আগে নিজের ভুল স্বীকার করেন তিনি। তবে তাতে মন গলেনি বাকি সিনেটরদের। এমনকি দলের ১১ সিনেটর তাকে বহিষ্কারের পক্ষে ভোট দেন।

ফলে প্রতিনিধি পরিষদে ২৩০-১৯৯ ভোটে তাকে শিক্ষা ও বাজেট পরিকল্পনা কমিটি থেকে বহিষ্কার করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গরাজ্য জর্জিয়াকে প্রতিনিধিত্ব করা এ নারী কংগ্রেস সদস্য কখনো ন্যান্সি পেলোসিকে মাথায় গুলি করে হত্যা, কখনো বা বারাক ওবামাকে ফাঁসিতে ঝোলানোর জন্য মঞ্চ প্রস্তুত রয়েছে এমন পোস্টে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন এবং সেখানে নিজে মন্তব্য করে তাতে উসকানি দিয়েছেন।

এ ছাড়া যখন ২০১৮ সালে দেশটির মধ্যবর্তী নির্বাচনে কয়েকজন মুসলিম সিনেটর জয় পায়, তখন এর প্রতিক্রিয়া জানাতে তিনি বলেন- এ নির্বাচনের মাধ্যমে আমাদের দেশ আবারও মধ্যযুগের অন্ধকারের দিকে যাত্রা শুরু করল।

সব মিলিয়ে বিস্তর অভিযোগের বোঝা মাথায় নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুটি কমিটি থেকে বিদায় নিতে হলো মুসলিমবিদ্বেষী এ নারী কংগ্রেস সদস্যকে।
সূত্র : বিবিসি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *